মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২১st জুন ২০১৭

ক্রীড়া ও সংস্কৃতি শাখা

প্রশিক্ষণ (ক্রীড়া ও সংস্কৃতি) শাখার কার্যক্রম ও সাফল্যঃ

 

ক্রম

কর্মকর্তা

কাজের বিবরণ

১।

নিমাই কুমার দাস

পরিচালক (ক্রীড়া ও সংস্কৃতি)

বিভিন্ন জাতীয় প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহণকারী দলের সার্বিক সমন্বয়ের দায়িত্ব পালন করে থাকেন।বিভিন্ন আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহণকারী দলের দলনেতা হিসেবে বিদেশে গমন, দলের সার্বিক দায়িত্ব পালন করে থাকেন।

(ক) খেলার মাঠে উপস্থিত থেকে খেলোয়াড়দের উৎসাহ প্রদানসহ, ক্রীড়া শাখার সার্বিক কাজের দায়িত্ব পালন

(খ) ইনোভেশন এর সভাপতির দায়িত্ব পালন।

(গ) সংস্কৃতি শাখার সার্বিক দায়িত্ব-বাংলাদেশ আনসার ও ভিডিপি সংস্কৃতিক দলে (অর্কেস্ট্রা দল) বিভিন্ন জাতীয় দিবসে এবং দেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডে অংশগ্রহণের ব্যবস্থা গ্রহণ করা।

তাছাড়া অত্র বাহিনীর ক্রীড়াঙ্গণের উন্নয়নের উর্ধ্ধতন কর্মকর্তাগণের নির্দেশনা বাস্তবায়নে সচেষ্ঠ থাকা।

 

২।

মোহাম্মদ রায়হান উদ্দীন ফকির

সার্কেল অ্যাডজুট্যান্ট

বাংলাদেশ আনসার ভিডিপি ক্রীড়া দলের পুরুষ মহিলা ৪২ ডিসিপ্লেনে খেলায় অংশ গ্রহণ করে থাকে। খেলার মাঠে উপস্থিত থেকে খেলোয়াড়দের উৎসাহ প্রদান করা, তৃণমূল পর্যায় থেকে খেলোয়াড় বাছাই করে এনে ক্রীড়া দলকে মজবুত করণ, খেলোয়াড়দের অনুশীলন তদারকী, ভালো ফলাফলের জন্য উচ্চতর প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করণ, খেলোয়াড়দের যাতায়াত ও আবাসন ব্যবস্থ নিশ্চিত করণ। প্রতি মাসে কোচ ও খেলোয়াড়দের বেতন ভাতাদি যথা সময়ে বিতরণ ও প্রপ্তি নিশ্চিত করণ। খেলোয়াড়দের ভালো ফলাফলের জন্য বিভিন্ন ফেড়ারেশনের মিটিং এ উপস্থিত থাকা। খেলোয়াদের আন্তর্জাতিক খেলায় অংশ গ্রহণের জন্য জিও, পাসপোর্ট নিশ্চিত করা। তাছাড়া ক্রীড়া ক্ষেত্রে সাফল্যের জন্য উর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণের আদশ যথাযথ বাস্তবায়নে সার্বিধক চেষ্ঠা করা।

 

শাখার কার্যক্রম

৩।

ক্রীড়া সংক্রান্ত যাবতীয় কাজ, যেমন- নির্দেশনা অনুযায়ী খেলা সংক্রান্ত নীতমাল তৈরি। বিভিন্ন প্রতিযোগিতার ফলাফল সংরক্ষণ, নীতিমালা মোতবেক জাতীয় ও আন্তর্জাতিক প্রযোগিতার প্রাইজমানি, পকেটমানি হিসাব-নিকাশ, কোচ-খেলোয়াড়দের মাসিক ভতা তৈরি, ক্রীড়া সামগ্রীর চাহিদা প্রদান, উত্তোলন ও বিতরণ নিশ্চিত ও বিভিন্ন ফেডারেশনের সাথে সমন্বয় করা। জাতীয় ও আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতার জন্য তৃণমূল পর্যায় থেকে খেলোয়াড় বাছাই করে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে  ভাল ফলা-ফল অর্জনের উপযোগী করে তোলা। বিদেশ বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহনের নিমিত্তে অংশগ্রহনকারীর পাসপোর্ট, জিও ও পকেটমানি বিতরণ নিশ্চিত করণ। বিভিন্ন জাতীয় প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহনকারী খেলায়াড়দের ডায়েট বাবদ বরাদ্দ প্রাপ্তি সাপেক্ষে রাজস্ব আনসার ও রাজস্ব ভিডিপি খাত হতে টাকা উত্তোলন ও বিতরণ নিশ্চিত করণ ইত্যাদি।

ক্রম

ক্রীড়া ক্ষেত্রে অত্র বাহিনীর সাফল্য

৪।

বাংলাদেশ তথা সারাবিশ্বে খেলা ধুলার গুরুত্ব অপরিসীম। শুধু তাই নয়, দিন দিন এ পরিধি বেড়েই চলেছে।পারস্পরিক ও আজন্তর্জাতিক সম্পর্ক উন্নয়নেও খেলাধুলা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে।।

বাংলাদেশের ক্রীড়াঙ্গনে ‘বাংলাদেশ আনসার ও ভিডিপি ক্রীড়া দল’ একটি উজ্জ্বল নক্ষত্র। এ নক্ষত্র তার জ্যোতিময় আলো ছড়িয়ে বাংলাদেশের ক্রীড়াঙ্গনকে আলোকিত করেছে। বাংলাদেশ আনসারে ও ভিডিপি ক্রীড়া দলের খেলোয়াড়গণ দেশের ও বিদেশের মাটিতে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করেছেন।এছাড়াও অত্র বাহিনীর ক্রীড়াবিদদের বীরোচিত ভূমিকায় বিগত বাংলাদেশ গেমসে পরপর চার বার চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেছে।

 ভারতের শিলং ও গৌহাটিতে অনুষ্ঠিতব্য ১২তম সাউথ এশিয়ান গেমস-২০১৬ এ বাংলাদেশ আনসার ও ভিডিপি ক্রীড়া দলের খেলোয়াড়গণ ০১টি স্বর্ণ, ০৬টি রৌপ্য ও ১১টি ব্রোঞ্জ পদক অর্জন করে।

 

জাতীয় পর্যায়ঃ ২০১৬ সালে জাতীয় পর্যায়ের ১৫টি প্রতিযোগিতায় অংশগ্রণ করে ৯২টি স্বর্ণ, ৭৯টি রৌপ্য এবং ৬৮টি ব্রোঞ্জ পদক নিয়ে ১০টিত  চ্যাম্পিঢন ০৪টিতে রানার্স আপ এবং ১টিতে ৩য় স্থান অর্জন করেন। তাছাড়া ১০টি ‍প্রতিযোগিতা ৬৯টি স্বর্ণ, ৫৩টি রৌপ্য ও ২২টি ব্রোঞ্জ পদক অর্জনকারী প্রতিযেগিতার মাধ্যে ১১’৮১,৫০০/- (এগারো লক্ষ একাশি হাজার পাঁচশত) টাকা ২৪/০৪/২০১৭ খ্রিঃ তারিখে আনাড়ম্বর অনুষ্ঠানের মাধ্যমে প্রাইজমানি বিতরণ করা হয়েছে।

 

আন্তর্জাতিক পর্যায়েঃ বাংলাদেশ আনসার ও ভিডিপি ক্রীড়া দলের সদস্যগণ জাতীয় দলে ২০১৬ সালে আন্তর্জাতি পর্যায়ের ০২টি প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে ১৪ট স্বর্ণ, ০২টি রৌপ্য এবং ০২টি ব্রোঞ্জ পদক অর্জন করে।

 

তাছাড়া ২০১৬ সালে বিজয় দিবস, স্বধীনতা দিবস ও অন্যান্যসহ ০৪টি প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহন করে অত্র বাহিনী ১৯টি স্বর্ণ, ১০টি রৌপ্য এবং ১৬টি ব্রোঞ্জ পদক নিয়ে ৪টিতেই চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে।

 

২০১৭ সালের জুন পর্যন্ত অত্র বাহিনীর ক্রীড়া দল জাতীয় ও অন্যান্য পর্যায়ে মোট ১১টি প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে ৫৮টি স্বর্ণ, ২৪টি রৌপ্য ও ৩০টি তাম্র পদক পেয়ে ১০টিতে চ্যাম্পিয়ন ও ০১টিতে ৩য় স্থান অর্জন করে। এই জয়ের ধারা অব্যাহত থাকার জন্য মহান আল্লাহ তায়ালা যেন আমাদের সহায় হন।

 

 

 


Share with :
Facebook Facebook